Thursday , July 19 2018
Breaking News
how to increase fiverr slale

ফাইভার থেকে অধিক আয় করার দুর্দান্ত টিপস

আপনি কি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করছেন? নাকি শুরু করার চিন্তা করছেন? নাকি কোন মার্টেকপ্লেস থেকে বেশী ইনকাম করা যায় সেটা খুঁজছেন?  তাহলে এই লেখাটি আপনার জন্যই! লেখাটি পড়ে উপকৃত হবেন কি হবেন না সেটও ভাবছেন? একটু পড়েই দেখুন!

বর্তমানে আমাদের দেশের অনেক তরুন তরুনী এমনকি অনেক বয়স্ক ব্যক্তিও অনলাইন ইনকাম তথা ফ্রিল্যান্সিংয়ে ঝুঁকছে। মূলত অফিস বা কারো অধীনে কাজ না করেই ঘরে বসে একটি কম্পিউটার ও ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে স্বাধীনভাবে কাজ করে ভালো ইনকাম করা যায় বিধায় এই পেশায় সবার আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে। আমি অনেককেই দেখেছি যে চাকুরী ছেড়ে নিজেকে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে। বর্তমানে নতুনদের মধ্যে বেশীরভাগেরই আগ্রহ fiverr.com এ।ফাইভারে কাজ পাওয়াটা অধিকতর সহজ বলেই এর জনপ্রিয়তা দিন দিন বাড়ছে।তাই আজকের এই লেখায় ফাইভারে থেকে অধিক আয় করার অসাধারন কিছু টিপস শেয়ার করব।

ফাইবার বর্তমানে অত্যাধিক জনপ্রিয় আন্তর্জাতিক অনলাইন মার্কেটপ্লেস যেখানে ফ্রিল্যান্সাররা (ফাইভারে সেলার) তাদের কর্মক্ষমতা ও দক্ষতার ভিত্তিতে ক্লায়েন্টদের জন্য বিভিন্ন সার্ভিসের প্যাকেজ তৈরি করে তা বিক্রির জন্য সাজিয়ে রাখেন। ফাইভারে এরকরম এক বা একাধিক প্যাকেজ মিলে তৈরি সার্ভিসগুলো গিগ নামে পরিচিত যার মূল্য সর্বনিম্ন ৫ ডলার থেকে শুরু করে ৫০০ ডলার পর্যন্ত হয়ে থাকে। ফাইভারে প্রতি ৫ ডলার মূল্যের গিগ বিক্রিতে সেলারকে ১ ডলার চার্জ করে; অর্থাৎ যেকোনো পরিমান সেলের ২০% চার্জ করে  (আপনার ইনকাম থেকে কেটে রাখবে)  ফলে ৮০% রেভিনিউ সেলারের অ্যাকাউন্টে জমা হয়। ফাইভার হতে পারে আপনার পার্টটাইম বা ফুলটাইম আয়ের উৎস। কিন্তু এখান থেক ভালো আয় করতে হলে আপনাকে জানতে হবে দুর্দান্ত কিছু টিপস। তো আর দেরী না করে চলুন জেনে নেওয়া যাক সেই টিপসগুলো কি কি?

  • শুধু সেই ধরনের গিগ গুলোই তৈরি করুন যেগুলো আপনি খুব তারাতারি সম্পন্ন করতে পারবেন

আপনি যদি ফাইভার থেকে অধিক আয় করতে চান, শুধুমাত্র সেই গিগ গুলো প্রদর্শন করুন যা অপেক্ষাকৃত অল্প সময় মধ্যে সম্পন্ন করতে পারবেন। কিছু গিগ এর উদাহরণ এমন হতে পারেঃ
• I will professionally capture audio or video from YouTube for $5
• I will leave 5 positive comments on your blog or videos for $5
• I will create a custom internet neme for you or your business for $5
যদি প্রতিটি আপনি ৫-১০ মিনিট বা তার কম সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে পারেন, তাহলে এটা পুরোপুরি যুক্তিসঙ্গত যে আপনি এক ঘন্টার মধ্যে এই কাজ আরও এক ডজন সম্পন্ন করতে পারবেন ফলে আপনার সর্বনিন্ম আয় হবে ৪৮ ডলার। তাই আপনাকে অবশ্যই এ ব্যাপারে সচেতন হতে হবে ২ ঘন্টা সময় যেন ব্যায় না হয় ৪ ডলার আয় করার জন্য এই বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।

  • আপনার গিগ বা সার্ভিস অফারটিকেআকর্ষণীয় করে তুলুন

ফাইবারে একই গিগ বা সার্ভিস অনেকেই প্রদান করে থাকে।  তাই প্রতিযোগীতার মাধ্যমেই আপনাকে এগিয়ে যেতে হবে, তবে দরকার যথাযথ কৌষলের। গীগটিকে সাজিয়ে নিন সাবলীল, সংগতিপূর্ণ, আর কার্যকরী তিথ্য দিয়ে। মনে রাখতে হবে গিগের ইনফরমেশন অনেক লম্বা করলেই সেটি আকর্ষনীয় হয়না বরং অল্প বাক্যে তুলে ধরুন আপনার সার্ভিসের মূল বিষয়গুলো। আপনার গিগটিকে করতে হবে সবার চেয়ে আকর্ষণীয়। অনুসরন করতে পারেন নিচের পদ্ধতিগুলোঃ

১. টাইটেল কে যত সম্ভব আকর্ষণীয় করুন কারন প্রথমত ক্লাইন্ট আপনার টাইটেলটি দেখেই সিদ্ধান্ত নিবে আপনার গিগটি সে পড়বে কি পড়বে না। অর্ডার পেতে হলো তো যে অর্ডার দিবে সে আগে আপনার গিগ পড়তে হবে। কি তাই নয় কি?

আবারও বলছি ক্লাইন্ট বা বায়ার কিন্তু প্রথমেই আপনার টাইটেল এর উপর দৃষ্টি রাখেন, তাই টাইটেল এ যথাসম্ভব গিগ এর কিওয়ার্ডগুলো লেখার চেষ্ট করুন। তাহলে বায়ার সহজে গিগটি বুঝতে পারবেন।

২. গিগ এর অফারের সাথে সংশ্লিষ্ট ছবি/ভিডিও ব্যাবহার আবশ্যকীয়

আপনার গিগে সংশ্লিষ্ট একাধিক ছবি (সর্বোচ্চ তিনটি ব্যবহার করা যায়) / ভিডিও ( একমিনিটের নিচে হলে ভালো ) আপনার অফারটিকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলবে। একটি কার্যকরী ছবি/ভিডিও অনেক বর্ণনার  চেয়েও ভাল। সুতরাং অফারের সাথে যে ছবি/ভিডিও সংযুক্ত করবেন সেটি গুরুত্বের সাথে নির্বাচন করতে হবে। গিগের সাথে ভিডিও দিলে সেটি সেল হওয়ার সম্ভাবনা ২০০% বেড়ে যায়।

৩. গিগ এর বিষয়বস্তুর যথাযথ বর্ণনা

আপনি যে গিগটি অফার করবেন এর সুন্দর/সাবলীল বর্ণনা দেওয়ার চেষ্টা করুন তাহলে বায়ার আপনার সার্ভিসটি কেনার ব্যপারে বেশি প্রাধান্য দিবেন। আপনার গিগের বর্ণনা তারাই পড়বে যারা আপনার টাইটেল এবং ছবি দেখে আগ্রহী হয়ে বিস্তারিত জানতে ক্লিক করবে। সুতরাং বিবরণটি এমনভাবে লিখুন যেন  বায়ার আপনার গিগ কেনার জন্য ইমপ্রেস হন। আপনি আপনার গার্লফ্রেন্ড বা বয়ফ্রেন্ডকে ইমপ্রেস করতে যেই টেকনিক অবলম্ভন করেন তার থেকেও ভালো পথ বেছে নিন ক্লাইন্টকে ইমপ্রেস করতে। মনের মাধুরী মিশিয়ে সব ভালোবাসা উজাড় করে দিয়ে আপনার গিগটি সাজিয়ে ফেলুন।




 

  • একই গিগএকাধিক স্টাইলে পুনরাবৃত্তি করুন

তারাতারি সম্পূর্ণ করা যায়, এরকম গিগ যদি ভাল বিক্রয় হচ্ছে দেখতে পান, তাহলে এ ধরনের আরও একাধিক গিগ একটু ভিন্ন আংঙ্গিকে তৈরী করতে পারেন। ফলে আপনার ক্রিয়েটিভিটি  দেখে ক্লায়েন্ট ইমপ্রেস হবে। উদাহরণস্বরূপঃ

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হচ্ছে,  অনেক ক্রেতা একই রকম গিগ বিভিন্ন কি-ওয়ার্ড দিয়ে সার্চ করে, তাই কি-ওয়ার্ড পরিবর্তন করে একই গিগের একাধিকবার পুনরাবৃ্ত্তি হতে পারে অধিক বিক্রয়ের অন্যতম মাধ্যম।

  • পুনরায় বিক্রয়ের জন্যক্রেতাকে বিশেষ অফার

ধরুন, আপনি একটি গিগ অফার করলেন, ৫ ডলারে ৫টি  ফেইসবুক পোষ্ট লিখে দিবেন, যখন আপনি কাজটি সম্পন্ন করলেন, তখন ক্রেতাকে অফার করতে পারেন ৬টি পোষ্ট লিখে দিবেন ৫ ডলারে বা অফার দিতে পারেন যে আজ/কালের মধ্যে এই গিগটি অর্ডার দিলে শুধু তোমার জন্য একই রেটে ৭টি পোস্ট করে দিব! এই আইডিয়া অন্য গিগ এর ক্ষেত্রেও অবলম্বন করতে পারেন। ক্লাইন্টের সাথে প্রেম করুন মানে ভালো সার্ভিস প্রদানের মাধ্যমে তার সাথে ভালো সম্পর্ক গড়ে তুলুন। ( এখানে প্রেম শব্দটি নেগেটিভ মাইন্ডে নিবেন না )

১০০ ওয়ার্ডের একটি অনুচ্ছেদ বিক্রয় করলেন ৫ ডলারে, পরবর্তী অর্ডারের জন্য ক্রেতাকে ৫ ডলারে ১২০ ডলার অফার করতে পারেন। একইভাবে ৫টি ব্লগপোষ্ট কমেন্ট এর যায়গায় ৬টি করতে পারেন, ফলে ক্রেতা মুগ্ধ হয়ে বার বার আপনার গিগই ক্রয় করবে। এরকম বিশেষ অফারে আপনার আয়ের পরিধি বাড়বে, শুধু তাই নয়, সার্চ রেজাল্ট এ আপনার গিগ এর প্রাধান্য পাবে সবার আগে। এই  কৌশল ব্যাবহার করে একটি সাধারণ গিগ অধিক সংখ্যক বার বিক্রয় করতে পারেন।




  • দ্রুত রেসপন্স কাস্টম অফার

উল্লেখ্য, ফাইবার গিগ এর সার্চ ফলাফলের র‌্যাংকিং করতে একটি জটিল পদ্ধতি ব্যবহার করে। এ পদ্ধতিতে বায়ারকে কে কত তারাতারি রেসপন্স করে এর উপর ভিত্তি করে র‌্যাংকিং  দেয়া হয়। তাই বায়ারকে যত দ্রুত রেসপন্স করার চেষ্টা করুন। দ্রুত রেসপন্স করার পর আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় “কাস্টম অফার”। বায়ারকে কাস্টম অফার করার চেষ্টা করুন। আপনি যে গিগ টি ইতিমধ্যে বিক্রয় করেছেন, এ ধরনের আরেকটি গিগ এর অফার করতে পারেন বায়ারকে। উল্লেখ্য কাষ্টম অফার এ গিগ এর বর্ণনা, কত সময়ের মধ্যে কাজটি সম্পন্ন করতে পারবেন এবং বায়ার এর জন্য কত ডলার প্রদান করবে এসব তথ্য উল্লেখ করতে হবে। মনে রাখবেন কোনকিছুই অতিরন্জিত ভালো নয়।

  • আপনার গিগ শেয়ার করুন যতটা সম্ভব

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনার গিগ শেয়ার করতে পারেন। হয়ত আপনার ফলোয়ারদের মধ্যে কারো এ ধরনের সার্ভিস প্রয়োজন হতে পারে। আরেকটি ব্যাপার হচ্ছে ফাইবার সেই গিগগুলোই সার্চ রেজাল্ট এ প্রাধান্য দেয়, যারা নিয়মিত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গিগ শেয়ার করে

  • নেতিবাচক রিভিউ, লেট ডেলিভারিঅর্ডার ক্যান্সেল এড়িয়ে চলুন

যদিও এটি একটি সাধারন ব্যাপার মনে হতে পারে, কিন্তু অবশ্যই আপনাকে নেতিবাচক রিভিউ, লেট ডেলিভারি ও অর্ডার ক্যান্সেল এড়িয়ে চলতে হবে। যদি তা না হয় তাহলে ফাইবার সার্চ রেজাল্ট এ আপনার গিগ এর  র‌্যাংকিং এবং সেলার লেভেল কমিয়ে দিবে।

বায়ারের সাথে স্বচ্ছ যোগাযোগের মাধ্যমে নেগেটিভ রিভিউ কমিয়ে আনতে পারেন। কাজ সম্পন্ন করার পূর্বে বায়ারকে অবশ্যই জানার কিছু বাকি থাকলে প্রশ্ন করে নিতে পারেন। কাজ ডেলিভারি দেয়ার সময় অবশ্যই ফাইভ ষ্টার রেটিং এর উপর গুরুত্ব দিতে হবে। যদি সম্ভব হয় তাহলে গিগ এ বর্ণিত অফারের চাইতে একটু বেশি কাজ করার চেষ্টা করবেন এর ফলো আপনি তাকে ৫ স্টার রিভিউ দিতে অনুরেনাধ করতে পারেন।

এই আর্টিকেলটি বার বার পড়ুন তারপর কাজ শুরু করুন। কোন কিছু বুঝতে সম্যা হলে কমেন্ট করুন।

তাহলে আজকের জন্য আল্লাহ হাফেজ।

 

আমাদেরকে অনুপ্রনিত করতে আপনার সুন্দর একটি মন্তব্যই যথেষ্ঠ

About H.M Mohiuddin

I am a professional web developer and social media marketing expert!

Check Also

sports news

‘ফ্রিল্যান্সার’ হতে যাচ্ছেন শহীদ আফ্রিদি

নিজের আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ার নিয়ে আর আশাবাদী নন খোদ শহীদ আফ্রিদি। আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে আনুষ্ঠানিক অবসর …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

7 − one =